এমপিও ভূক্ত বেসরকারি শিক্ষকদের ঈদ ২৫ শতাংশ, এই বৈষম্যের অবসান চাই

বাংলাদেশ দ্রুত মধ্যম আয়ের দেশে পরিনত হতে চলেছে। এটি অত্যন্ত ভাল দিক। এই খুশিতে আহ্লাদে আমরাও আটখানা। আমাদের মাননীয় অর্থমন্ত্রী মহোদয় অত্যন্ত সফলতার সাথে ২০১৭-১৮ সালের জন্য ৪ লাখ ২৬৬ কোটি টাকার মেগা বাজেট



শুধু হলমার্কই নিল ৪০০০ কোটি টাকা এবার ৮০০ কোটিতে কি থামবে বিদেশিরা?

কয়েকদিন আগে বিভিন্ন ব্যাংকের গ্রাহক একাউন্ট থেকে চলে গেল বেশ বড় অংকের টাকা। এই চক্রের মূল হোতা পিওতর বা পিটর যেই নামেই পরিচয় দিয়ে থাকেন না কেন তার মাসিক উত্তোলনের পরিমাণ ছিল ৪ কোটি

প্রিয় মামুন এবং হায়দার হোসেন …

১৯৭৩ সালের এক বিকেলে, মামুনের সাথে আমার প্রথম পরিচয়। আমরা তখন ৩৩৯ নম্বর এলিফেন্ট রোডে থাকি। হাসিখুশী মামুন ছিল, খুবই উইটি, ওরা থাকতো ৩২৯ নম্বরে। একদিনেই ও আমার ভাল বন্ধু হয়ে যায়! আমরা একসাথে

৭১-এর শত্রুপক্ষকে হারালাম এবার মিত্রশক্তির পালা———

ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, কাবাডি, কুটনীতি যেখানেই হোক পাকিস্তানকে হারানোর মজাই আলাদা। ১৯৭১ সালে দীর্ঘ ন’মাস ব্যাপী নিরাপরাধ বাঙালির ওপর পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বর্বরোচিত ও পৈশাচিক হামলার বিভৎস চিত্র আজও বীর বাঙালি ভুলে যায়নি। তাই

১৯৮৬’র লিপুদের অপমানের জবাব ২০১৬তে দিল মাশরাফিরা… কী বলবেন ইমরান খান?

এশিয়া কাপের গতকালের খেলায় পাকিস্তানকে ৫ উইকেটে হারিয়ে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ গতকাল ব্যাটং বোলিং এবং ফিল্ডিং সর্বক্ষেত্রে দাপটের সংগে খেলেই পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জয়লাভ করেছে। এই জয়ে সকলের আনন্দের চাইতে কিছু লোক নিজেদের আনন্দটা একটু আলাদা

কয়েকটি সফল ব্যর্থতা এবং অতঃপর

অনেকেরই জানা তবুও একজন বিশিষ্ট ব্যক্তিকে নিয়ে বলি। তিনি ২১ বছর বয়সে ব্যবসায় ক্ষতিগ্রস্থ হন, ২২ বছর বয়সে আইন সভার নির্বাচনে পরাস্ত হন। ২৪ বছর বয়সে আবার ব্যবসায় ব্যর্থ হন। ২৬ বছর বয়সে প্রিয়তমা

সুখ দিয়ে শান্তি কিনতে ব্যাকুল এ প্রাণ!!

সমাজে মহামারি আকারে যে দূর্ভোগের উপদ্রব তা হল “সুখের অসুখ”। সবকিছুতেই সুখ থাকা চাই। এখন আর গরমে হাত পাখা কিংবা বৈদ্যুতিক পাখার বাতাসে চলে না, শীতে আর দেশি কাঁথা কম্বলে চলে না এমনকি পায়ে

এই মন বুদ্ধিজীবী হইতাম চায় (পর্ব ২)

এই দেশে বর্তমানে সৎ রাজনীতি নাই ইহা নিশ্চিত করিয়া বলাটা মুশকিল। আর আছে বলিলে তাহার প্রমান দেওয়া অনেকটাই এভারেস্ট জয়ের সামিল। তাই আমার এই শীর্ণকায় দেহ লইয়া জটিল এসাইনমেন্ট হাতে না লওয়াই ভাল। সৎ

এই মন বুদ্ধিজীবী হইতাম চায় (পর্ব ১)

বুদ্ধিজীবী, ইহা বিশ্বের অন্যান্য দেশে একটি বিরল প্রজাতি হইলেও বাংলাদেশের মাটি ও জলবায়ু এই প্রজাতির উৎপাদনে অত্যন্ত উর্বর। এইদেশে বানরের সংখ্যার চাইতে বুদ্ধিজীবীর সংখ্যা খুব কম হইবে বলিয়া মনে লয়না। তবে নিশ্চিত বলিতে পারিতাম

নামের বাহার, ধোঁকার পাহাড়

দেশের শিক্ষাব্যবস্থার উপর এর আগেও দুটো লিখেছি। এবার আরেকটি প্রসঙ্গ নিয়ে লিখলাম। আসলে জাতির মেরুদণ্ড গঠনে যে শিক্ষা প্রয়োজন সেই শিক্ষার মেরুদণ্ড ঠিক আছে কিনা তা অবশ্যই জানা প্রয়োজন। আলোচনার বিষয় “শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম।”

বাতাসে খানিক বিপদের গন্ধ।।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জাতিসংঘে বেশ জোড়ালো ভূমিকা পালন। চ্যাম্পিয়নস অফ দি আর্থ পুরস্কার লাভ। এইগুলো আমাদেরকে প্রফুল্ল রাখার কথা। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের পরিচয় একধাপ উপরে যাবার কথা। অন্যদিকে একই সময়ে হটাৎ করে ইতালিয় ও জাপানি

শেখ মুজিব- ফিরে দেখা কান্না কিংবা আনন্দ

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ট ঠিক ভোরবেলায় বাংলাদেশ বেতারের নিয়মিত অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার আগেই একটি কর্কশ কন্ঠ ইথারে ভেসে এল, ” আমি মেজর ডালিম বলছি, স্বৈরাচারী শেখ মুজিবকে হত্যা করা হয়েছে”। অপ্রত্যাশিত সেই ঘোষনা তখন

হিরোশিমা-নাগাসাকির সেই দু:সহ স্মৃতি

মানব সভ্যতার ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ ও সর্বাধিক এলাকা ব্যাপক বিস্তারী ও বিপর্যয়কর সংঘাত নাম দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। ১৯৩৯ থেকে ১৯৪৫ সাল পর্যন্ত চলা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মোড় ঘুরিয়ে দেয় পার্ল হারবার আক্রমন। যুদ্ধের শেষভাগে ১৯৪১সালের ৭ই

দৃষ্টিভঙ্গী হোক ইতিবাচক আর শিক্ষা হোক মনুষত্বের

পৃথিবীর আদি লগ্ন থেকেই নারীরা পুরুষদের শাসনে চলে বলে শোনা বা দেখা যায়। বিশেষ করে এই দৃশ্যটা আমাদের মত মধ্য কিংবা নিম্ন আয়ের দেশে যেখানে নারী মানেই ঘরের মেয়ে, মা কিংবা বউ এমন সমাজেই

ফেসবুক সমাচার

আজ ফেসবুক যে আমাদের জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ তা বলার অপেক্ষা রাখে না। আমাদের জীবনের সব সুখ-দুঃখের সাথী এখন ফেসবুক। ফেসবুকের জানালা দিয়ে আমাদের আত্মীয়-বন্ধু-পরিচিত মানুষদের সব খবর চলে আসে চোখের সামনে। ডাকপিয়নের কাজ