১২ মার্চ, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা থমকে আছে সরঞ্জাম সংকটে। এমনিতেই সাম্প্রতিক দুই দফা ধর্মঘটের প্রভাব রয়েছে, তার ওপর আছে ক্রমবর্ধমান বাণিজ্য বৃদ্ধিতে কনটেইনার ও কার্গো পরিবহনের চাপ। এমন অবস্থায় সরঞ্জাম সংকট যেন গলা টিপে হত্যা করছে দেশের প্রধান এই সমুদ্রবন্দরের প্রত্যাশিত গতিকে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জাহাজের টার্ন অ্যারাউন্ড টাইম ক্ষেত্রবিশেষে ৭২ ঘণ্টা ছাড়িয়ে আরও এক দিন দীর্ঘ হচ্ছে, আউটারে অলস বসে থাকছে জলযান। বন্দরের দায়িত্বশীলরা অবশ্য বলছেন, গতিশীলতা বাড়াতে ইকুইপমেন্ট সংকট কাটানোর ওপর বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

অন্যদিকে ব্যবসায়ী নেতা ও বন্দরের স্টেকহোল্ডাররা জানান, প্রায় ১২০০ কোটি টাকা ব্যয়ে বন্দরের অতিপ্রয়োজনীয় সরঞ্জাম ক্রয় প্রক্রিয়া অর্ধযুগ ধরে নানাভাবে বাধাগ্রস্ত হয়ে কাঙ্ক্ষিত গতি পাচ্ছে না। এতে বন্দরের সক্ষমতার পুরোটা কাজে লাগানো যাচ্ছে না। এতসব প্রতিকূলতা সত্ত্বেও আশায় বুক বেঁধে আছেন চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ (চবক) ও এর ব্যবহারকারীরা। গেল বৃহস্পতিবার সব মিলিয়ে বন্দর হ্যান্ডলিং করে ৩৩ হাজার ৬৪৮ টিইইউস। এর মধ্যে এফসিএল ২৮ হাজার ৬০৯, এলসিএল ১৭৬ ও আইসিডিতে যায় ৬৫।

বন্দর ব্যবহারকারীরা বলছেন, ২০১৯ সালের মধ্যে ৩ মিলিয়ন টিইইউস হ্যান্ডলিং চাহিদা হবে চট্টগ্রাম বন্দরের। ২০২০ নাগাদ ৩.৫ মিলিয়ন টিইইউস সরবরাহ থাকবে। এ চাহিদা মেটাতে অবশ্যই পতেঙ্গা কনটেইনার টার্মিনাল চালু করতে হবে। পোর্ট ইউজার্স ফোরাম ও চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (সিসিসিআই) সভাপতি মাহবুবুল আলম তালুকদার বলেন, মধ্যখানে ধর্মঘটের কারণে বন্দর হ্যান্ডলিংয়ে কিছুটা স্থবিরতা দেখা দিলেও তা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়েছে। তবে বন্দরের সক্ষমতা আরও বাড়াতে হবে। আর এ লক্ষ্যে পর্যাপ্ত সরঞ্জামাদি যত দ্রুত সম্ভব সংগ্রহ করতে হবে।

বিজিএমইএ’র সাবেক প্রথম সহসভাপতি নাসির উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বন্দরে এখন তেমন বড় ধরনের কোনো জট কিংবা জটিলতা নেই। তবে সাম্প্রতিক ধর্মঘট এবং পর্যাপ্ত সরঞ্জামের অভাবে সামগ্রিক হ্যান্ডলিংয়ের গতি প্রত্যাশিত নয়। এ কারণে মাঝেমধ্যে আউটারে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ছেড়ে যেতে পারছে না জাহাজ। অনেক সময় বাড়তি ২৪ ঘণ্টা অপেক্ষমাণ থাকতে হচ্ছে। বন্দরের বৃহত্তম টার্মিনাল অপারেটর ‘সাইফ পাওয়ারটেক’-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তরফদার রুহুল আমিন বলেন, সরঞ্জাম স্বল্পতা তো রয়েছেই। যে কারণে মাঝেমধ্যে ‘টার্ন অ্যারাউন্ড টাইম’ এক দিন বাড়তি হচ্ছে। তবে সার্বিক অর্থে জট কমেছে। আগামী মে থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে ১১টি আরটিজি (রাবার টায়ার গ্যান্ট্রি) কেনা হচ্ছে। এ ছাড়া গ্যান্ট্রি ক্রেন কেনা হলে গতিশীলতা আরও বাড়বে। ২০১৮ সালের মধ্যে ৮০ শতাংশ সংকট কাটবে। অন্যদিকে ২০২০ সাল পর্যন্ত আরও অন্তত ৩০টি স্ট্র্যাডাল ক্যারিয়ার প্রয়োজন। সময়ের বাড়তি চাহিদা মেটাতে ২০২০ সালের মধ্যে পতেঙ্গা কনটেইনার টার্মিনাল এবং ২০২১-২২ সালের মধ্যে ‘বে টার্মিনাল’ নির্মিত হবে বলে আশা করছেন তিনি।

শিগগির আরও অন্তত ৫৫০ কোটি টাকার সরঞ্জাম কেনা হচ্ছে বলে জানিয়ে আশাবাদের কথা-ই বললেন বন্দর ব্যবহারকারী বড়তাকিয়া গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়াজ মোর্শেদ এলিট। তার মতে, পতেঙ্গা কনটেইনার টার্মিনাল নির্মাণ হলে ২০১৯ সালের মধ্যেই আরও চারটি জেটি সংযুক্ত হবে বন্দরে, তাতে গতিশীলতা আরও বাড়বে। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ (চবক)-এর সদস্য জাফর আলম অবশ্য আশাবাদী সম্ভাব্য সব সরঞ্জাম যুক্ত হলে হ্যান্ডলিং ক্ষমতা দ্বিগুণ হবে বলে। তিনি জানান, অন্তত আরও ছয় থেকে সাত মাস লাগতে পারে প্রত্যাশিত ইকুইপমেন্টগুলো কেনায়। এরই মধ্যে ছয়টি আরটিজি ও ছয়টি ‘কি গ্যান্ট্রি ক্রেন’ কেনা হচ্ছে। ৬ এপ্রিল উন্মুক্ত হবে ছয়টি কি গ্যান্ট্রি ক্রেনের টেন্ডার। এ ছাড়া আরএমজি, আরও ছয়টি আরটিজি ও চারটি কি গ্যান্ট্রি ক্রেনসহ অন্য সরঞ্জামগুলো কেনার প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে।

নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান ইতিমধ্যে এই বন্দরের আরও সক্ষমতা বাড়াতে ‘বে-টার্মিনাল’সহ আরও কয়েকটি টার্মিনাল স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানান। পর্যাপ্ত সরঞ্জাম সংগ্রহের উদ্যোগও প্রক্রিয়াধীন বলে জানান মন্ত্রী এবং বন্দরের দায়িত্বশীলেরা। তারা বলছেন, নৌবাণিজ্য বাড়তে থাকায় বাড়ছে আমদানি-রপ্তানির হার। জাহাজের আগমনের রেকর্ডও পুরনো রেকর্ড ভাঙছে। ২০১৬ সালে জাহাজ আগমনেরও নতুন রেকর্ড হয়েছিল। কার্গো পণ্য হ্যান্ডলিংয়ের ক্ষেত্রেও নতুন রেকর্ড গড়ে বন্দর কর্তৃপক্ষ। গেল বছর প্রায় ৭ কোটি টন পণ্য ওঠানামা করে, যা পূর্ববর্তী ২০১৫ সালে ছিল ৫ কোটি টন। প্রবৃদ্ধি এ ক্ষেত্রে ৭ শতাংশেরও বেশি বলে জানান দায়িত্বশীলরা। এদিকে ২০১৬ সালে এসে কার্গো হ্যান্ডলিং হয়েছে প্রায় ৭ কোটি টন, যা এযাবৎকালে সবচেয়ে বেশি।

অন্যদিকে, ক্রমাগত বাড়ছে কনটেইনার হ্যান্ডলিং প্রবৃদ্ধিও। ২০১৪ সালে ১৭ লাখ ৩১ হাজার ২১৯ কনটেইনার হ্যান্ডলিং হয়, যাতে প্রবৃদ্ধি ছিল ৯ দশমিক ৬ শতাংশ। পরের বছর ২০১৫ সালে এসে কনটেইনার হ্যান্ডলিংয়ের গড় প্রবৃদ্ধি প্রায় ১৭ শতাংশ বেড়ে যায়, যা ছিল পূর্ববর্তী ১০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। ২০১৬ সালে প্রায় সাড়ে ২৩ লাখ টিটিইউস কনটেইনার হ্যান্ডেলের মধ্য দিয়ে প্রবৃদ্ধি দাঁড়ায় ৬ শতাংশের বেশি, যা কিনা ১২৮ বছরে ইতিহাসে সর্বোচ্চ হ্যান্ডলিংয়ের রেকর্ড। পূর্ববর্তী বছর ২০১৫ সালে হ্যান্ডলিংয়ের পরিমাণ ছিল প্রায় ২০ লাখ কনটেইনার। এর মধ্য দিয়েই এ বন্দর প্রথমবারের মতো ‘টু মিলিয়নস ক্লাব’-এ প্রবেশ করে। ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ প্রস্তাবিত ‘বে-টার্মিনাল’ যত দ্রুত সম্ভব নির্মাণ, পর্যাপ্ত ইকুইপমেন্ট সংগ্রহ জরুরি বলে মনে করছেন বন্দর ব্যবহারকারীরা।

চবক সূত্র জানায়, বে-টার্মিনালটি হলে প্রবেশ করতে পারবে ৫ হাজার কনটেইনারবাহী জাহাজও। জোয়ার-ভাটার ওপর নির্ভরশীল চট্টগ্রাম বন্দরে বর্তমানে যেখানে ৯ দশমিক ৫০ মিটারের অধিক গভীর কোনো জাহাজ নোঙর করতে পারছে না সেখানে টার্মিনালটিতে অনায়াসে ঢুকতে পারবে ১৪ মিটার গভীর ড্রাফটের জাহাজও।

Share

আরও খবর