১৫ ডিসেম্বর, লাইফস্টাইল ডেস্কঃ চলেছে শীতকাল। অনেকেই ভারী কাপড় কিনতে শুরু করেছে। শীতে শরীরে ভারী কাপড় ব্যবহার করা মানে পাতলা কাপড়ের সব ফ্যাশন ছাই। তরুণীদের এই নিয়ে রয়েছে নানা চিন্তা। ফ্যাশনটা নষ্ট হয়ে গেল কিনা, বা দামটা আবার হাতের নাগালের বাইরে না তো!

তাই বিভিন্ন কোম্পানী এই বিষয়গুলো মাথায় রেখে বাজারে ছাড়ে ফ্যাশনএ্যাবল জ্যাকেট। শাড়ীর বা কামিজ অথবা প্যান্টের সঙ্গে পরতে পারবেন এই জ্যাকেট। অনেক জ্যাকেট সামনে একেবারে খোলা থাকে আবার অনেক গুলোতে থাকে বোতাম চেইন, ফিতা ইত্যাদি। মানুষভেদে পছন্দ আলাদা তাই ফ্যাশনের কালেকশন ও আলাদা।

যেখানে পাওয়া যাবে:
রাজধানীর যতোগুলো ফ্যাশন হাউজ রয়েছে সবগুলোতেই পাবেন জ্যাকেটের প্রদর্শন। উন্নতমানের কিনতে হলে নির্দিষ্ট ব্র্যান্ডের শো-রুমে যাওয়াই ভালো। যেমন যেতে পারেন- ক্যাটস্ আই, একস্ট্যাসি, আর্টিস্টি, ফ্রিল্যান্ড, ওটু, স্মার্টেক্স, প্লাস পয়েন্ট, তানজিম স্ট্রিট, ইনফিনিটি, কান্ট্রি বয়, রেক্সসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজে।

এছাড়াও পাবেন বড় বড় সব শপিং কমপ্লেক্স গুলোতে। নিউ মার্কেট, বঙ্গবাজার, ইসলামপুর, বদরুদ্দোজা সুপার মার্কেট, আজিজ সুপার মার্কেট, রাজধানী সুপার মার্কেট, প্রিন্স প্লাজাসহ বিভিন্ন মার্কেট গুলোতে পাবেন জ্যাকেটের শো-রুম।

যে ধরনের জ্যাকেট বাজারে পাওয়া যাচ্ছে:
বাংলাদেশি কোম্পানি গুলোর পাশাপাশি বিদেশী কম্পানী গুলোও তৈরী করে ফ্যাশনএ্যাবল জ্যাকেট। বাজারে চায়না জ্যাকেট অনেক। প্রায় প্রতি শো-রুমে দোকান গুলোতে পাওয়া যায় চায়না জ্যাকেট, যেমন কোয়ালিটি, তেমনি রং। সেলাইয়ের মানও ভাল। বর্তমানে আজকের তরুণরা চায়না জ্যাকেট বেশ পছন্দ করে। দামের হিসাব করলে দেশি তৈরী জ্যাকেট ও চায়না জ্যাকেটের দাম প্রায় কাছাকাছি।

বিদেশী জ্যাকেটের মধ্যে প্রসিদ্ধ হলো- ইরানী, অ্যারাবিক, বিলেতি ইত্যাদি। তবে দেশের তৈরী জ্যাকেটগুলো মফস্বল এলাকায় বেশ চলছে। নিজের আয়ের লোকজন দেশিয় তৈরী জ্যাকেটই বেশি পছন্দ করে।

Share

আরও খবর