১২ নভেম্বর, অনলাইন ডেস্কঃ হংকংয়ের কেন্দ্রস্থলে দুটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে গণতন্ত্রপন্থি শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করেছে। গণতন্ত্রপন্থিদের সঙ্গে গত কয়েক মাস ধরে চলা সংঘর্ষে পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যাকে পুলিশ চীনা শাসিত শহরটি ‘পুরোপুরি ভেঙ্গে পড়ার প্রান্তে’ রয়েছে বলে মন্তব্য করেছে।

একদিন আগে পুলিশ এক বিক্ষোভকারীকে কাছ থেকে গুলি করেছিল। একই দিন এক ব্যক্তির গায়ে পেট্রোল ঢেলে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছিল।

মঙ্গলবার মুখোশ পরিহিত এক হাজারের বেশি বিক্ষোভকারী মধ্যাহ্নভোজের সময় সেন্ট্রাল এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এ সময় তারা শহরের সর্বোচ্চ ভবন ও বিলাসবহুল আবাসিক ভবনগুলোর নিচের সড়ক  বন্ধ করে দেয়।

সিটি ইউনিভার্সিটিতে বিক্ষোভকারীরা সেতুর ওপরে ইট জড়ো করে এবং পেট্রোল বোমা ছুঁড়ে মারে। এছাড়া চাইনিজ ইউনিভার্সিটি ক্যাম্পাসের ভেতরে ও প্রবেশ মুখের সড়কগুলোতে ইটের টুকরা ও আবর্জনা ছড়িয়ে রাখা হয়। কিছু সড়কে আগুনও জ্বালায় বিক্ষোভকারীরা।

ক্যান্ডি নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘এটা স্রেফ পাগলামো, পুলিশ ২০ মিনিটেরও বেশি সময় ধরে টিয়ার গ্যাস ছুঁড়েছে। তারা ভেতরে না আসলে আমরা তাদের সাথে সংঘাতে জড়াতাম না। এটা আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়।’

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, বেশ কয়েক জন আহত হয়েছে। এক সাংবাদিক শিক্ষার্থী চোখে আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন।

পুলিশ কাছের শহর তাই পাওতেও টিয়ার গ্যাস ছুঁড়েছে। বিক্ষোভকারীরা এখানাকার সড়কগুলোতে ছাতার আড়ালে আশ্রয় নেয়।

হংকংয়ের প্রধান নির্বাহী ক্যারি ল্যাম জানিয়েছেন, বিক্ষোভকারীরা চরম স্বার্থপর। বিশ্ববিদ্যালয় ও স্কুলগুলো যেন তাদের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে অংশ নিতে না দেয় সেই প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন তিনি।

Share

আরও খবর