সাকিব আল হাসানসাকিব আল হাসান। বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার খুলতে যাচ্ছেন তাঁর নতুন একটি রেস্তোরাঁ। নাম সাকিব’স ডাইন। একে শুধু রেস্তোরাঁ বললে ভুল হবে। বলা যায় ছোট খাটো একটা মিউজিয়াম। ক্রিকেট প্রেমীরা যেখানে খুঁজে পাবেন নানা সময়ে সাকিবের কীর্তি গাথা স্যুভিনিয়র। আছে জাতীয় দলের জার্সি থেকে শুরু করে তাঁর ব্যবহৃত ব্যাট-বলও। নজরে পড়বে আশপাশের দেয়ালে আঁকা ঐতিহাসিক স্টেডিয়াম। বনানী ১১ নম্বর রোডে ‘আর্টিসান, দ্য ক্লথিং স্টোর’ এর উপরেই রেস্তোরাঁ আর সেখানে বসেই আইপিএল খেলতে যাওয়ার আগে ‘টাইমস টু হ্যালো ’র সাথে আড্ডা দিলেন সাকিব। তিনি এই আড্ডাতে বললেন ক্রিকেটাঙ্গন ও তাঁর বর্তমান নিয়ে। আর তা নিয়েই দি টাইমস ইনফো‘র পাঠকদের জন্য আজকের আয়োজন।

দি টাইমস ইনফোঃ কেমন আছেন?
সাকিব আল হাসানঃ ভাল, আপনি?
দি টাইমস ইনফোঃ ভাল। সবেমাত্র শেষ হল বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজ, এই সিরিজ নিয়ে আপনার পোস্ট মর্টেম?
সাকিব আল হাসানঃ দেখুন ঢাকা টেস্টটা ছাড়া ওভারঅল সিরিজটা আমাদের দারুণ গিয়েছে। ওয়ানডে সিরিজ জিতব সেই আত্মবিশ্বাস আমাদের ছিল। তবে হোয়াইট ওয়াশ করব এমনটা ভাবতে পারিনি। টি টোয়েন্টিটাও বেশ উপভোগ্য ছিল। প্রমান হল বাংলাদেশ আগের চেয়ে অনেক শক্তিশালী ও ব্যালেন্সড দল।
দি টাইমস ইনফোঃ এই সিরিজে আপনার মতে আমাদের প্রাপ্তি কি?
সাকিব আল হাসানঃ এই সিরিজে সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি হচ্ছে তামিম, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল, মুশফিকসহ সবার স্বাচ্ছন্দে খেলা। এছাড়াও মুস্তাফিজ আর মোহাম্মদ শহীদের মত পেসার আমাদের বড় প্রাপ্তি।
দি টাইমস ইনফোঃ পাকিস্তান সফরে আসার আগেই তো সিরিজ জেতার প্রত্যয় শুনিয়ে ক্রিকেটপ্রেমীদের আত্মবিশ্বাস আরও বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। সামনের মাসেই তো আসছে ভারত। এবার কি মনে হচ্ছে?
সাকিব আল হাসানঃ দেখুন, ভারত উঁচু মানের একটা দল। এবারের বিশ্বকাপেও সেমিফাইনাল খেলেছে। তাদের সাথে পেরে ওঠাটা একটু কঠিন তো হবেই। তবে আমাদের আত্মবিশ্বাসটাও কিন্তু কম নয়। পাকিস্তান সিরিজ বলেন আর বিশ্বকাপ ক্রিকেটের কথাই বলেন, আমাদের প্রত্যেক খেলোয়াড় দারুণ পারফরমেন্স করেছে। তাছাড়া দলটা যখন ভারত, তখন আমার তো মনে হয় সমর্থকদের কাছ থেকে এবার বাড়তি অনুপ্রেরণা পাব। সুতরাং শুধু ভাল খেলাই নয়। আশা করছি সিরিজ জয় হবেই।
দি টাইমস ইনফোঃ যদি সিরিজটা জেতেন তবে….. (কথা কেড়ে নিয়ে)
সাকিব আল হাসানঃ ভাই, আনন্দে আত্মহারা হয়ে যাব…….. ।
দি টাইমস ইনফোঃ এবার খেলা বাদে আপনার সাকিব’স ডাইন নিয়ে প্রশ্ন করি-
সাকিব আল হাসানঃ হ্যাঁ, নিশ্চয়ই।
দি টাইমস ইনফোঃ হঠাৎ রেস্টুরেন্ট ব্যবসায় আসলেন যে?
সাকিব আল হাসানঃ ঠিক হঠাৎ না। ২০০৮ সাল থেকেই এমন পরিকল্পনা মাথায় ছিল। আসলে খেলা নিয়ে এত ব্যস্ত থাকি যে সব গুছিয়ে উঠতে একটু সময় লাগল, এই আর কি। আর ব্যবসায় কেন জানি আমার ভাগ্যটা খুব ভাল। (মৃদু হাসি)।
দি টাইমস ইনফোঃ কি কি থাকছে সাকিব’স ডাইনে?
সাকিব আল হাসানঃ এমনিতে সবধরণের ফাস্ট ফুড আইটেম তো থাকছেই। এই যেমন পিজ্জা, বার্গার, সেন্ডুইচ আর বিভিন্ন ফ্রাই। তাছাড়া তৃতীয় তলায় দেশীয় খাবারের সঙ্গে থাকছে থাই, ইন্ডিয়ান আর বেশ কিছু স্প্যাশাল অ্যারাবিক খাবার। অবশ্য ডিশ আইটেমগুলো শুরু করতে একটু সময় লাগবে।
দি টাইমস ইনফোঃ আপনার কাছে কোনটি ভাল লেগেছে?
সাকিব আল হাসানঃ উমমমম। এখানকার পিজ্জাটা অসাধারন! তাছাড়া কফিটাও দারুণ লেগেছে। (তৃপ্তির হাসি)।
দি টাইমস ইনফোঃ আপনার আগে সৌরভ গাঙ্গুলি, শচীন টেন্ডুলকারের মত অনেক নামী ক্রিকেটাররাও তো রেস্টুরেন্ট দিয়েছিলেন। কিন্তু সফল হননি?
সাকিব আল হাসানঃ ওই যে বললাম, ব্যবসায় কেন জানি আমার ভাগ্যটা ভাল। আর নিজের রেস্টুরেন্ট বলে বলছিনা- ভোজন রসিকরা এখানকার খাবারে ভিন্ন রকম এক স্বাদ পাবেন।
দি টাইমস ইনফোঃ আনুষ্ঠানিক লঞ্চিং হচ্ছে কবে? কোন চমক থাকছে কি?
সাকিব আল হাসানঃ আমার কাছে সবচেয়ে বড় চমক তো আমার বউ (শিশির)। আশা করছি এমাসের শেষে ও আর আমি মিলেই ফিতা কাটব। যদি সম্ভব না হয় তবে পহেলা জুন।
দি টাইমস ইনফোঃ আপনাকে অনেক ধন্যবাদ ‘টাইমস টু হ্যালো ’কে সময় দেয়ার জন্য। আপনার ও আপনার নতুন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য রইল শুভ কামনা।
সাকিব আল হাসানঃ আপনাদেরকেও অনেক ধন্যবাদ। শুভকামনা আপনাদেরও।

সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করেছেন এমএম মাহমুদ।

Share

আরও খবর