২৭ নভেম্বর, অনলাইন ডেস্কঃ  সিলেটের পথ-ঘাট ব্যানার, ফেস্টুন আর বিলবোর্ডে ছেয়ে গেছে। উপলক্ষ্য, জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন।

সম্মেলন সফলের আহ্বান জানিয়ে টানানো এসব ব্যানার-ফেস্টুনের মাধ্যমে নিজেদের ‘আত্মপ্রচার’ করছেন নেতারা। নেতাদের সমর্থকরাও নেই পিছিয়ে। অনেক ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রীর ছবি ছাপিয়ে গেছেন তারা।

আগামী ৫ ডিসেম্বর সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। নগরের আলীয়া মাদ্রাসা মাঠে সম্মেলনের উদ্বোধন পর্ব শেষে বিকেলে কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে হবে কাউন্সিল। এ কারণে নগরের চৌহাট্টা পয়েন্ট থেকে শুরু করে রিকাবীবাজার পয়েন্ট পর্যন্ত সড়কের দুইধারে ব্যানার-ফেস্টুন আর বিলবোর্ড টানানো হয়েছে। বাদ পড়েনি বিজ্ঞাপনী সংস্থার বিলবোর্ডও; সেখানেও শোভা পাচ্ছে নেতাদের নাম আর ছবির বড় বড় বিলবোর্ড।

দীর্ঘ ১৪ বছর পর সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ কারণে নেতাকর্মীদের মাঝে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। ইতোমধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের সবকটি উপজেলা কমিটি গঠন সম্পন্ন হয়েছে।

জেলা আওয়ামী লীগে শীর্ষ দুই পদে ১৪ নেতার নাম আলোচনায় এসেছে। তারা কাউন্সিলর থেকে দলের শীর্ষ পর্যায়ে লবিং করছেন। তবে ‘ভোট না সমঝোতা’ কোন প্রক্রিয়ায় জেলা কমিটি হবে তা এখনো স্পষ্ট হয়নি। তবে ভোট হলে জেলার নেতৃত্ব নির্বাচন করবেন ৫০০ কাউন্সিলর।

একইভাবে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সবকটি ওয়ার্ড কমিটিও গঠন হয়েছে। মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদত হতে আলোচনায় রয়েছেন ১৫ নেতা। আগামী দিনে তারা পুণ্যভূমি সিলেট নগরে আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিতে চান। যদি কাউন্সিলের মধ্যে দলের নেতৃত্ব নির্বাচন হয়, তবে সিলে নগর আওয়ামী লীগে ৪১০ কাউন্সিলর ভোট দিয়ে নেতা নির্বাচন করবেন।

তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বলছেন, যারা কর্মী বান্ধব তারাই নেতৃত্বে আসবেন। আর প্রার্থীরা বলছেন, ‘পদ প্রত্যাশী হলেই যে পদ পাওয়া যাবে-তা কিন্তু নয়। আমাদের সভানেত্রী আমাদের ব্যাপারে ভালো জানেন। তিনি ভালো করে জানেন, কে কি দায়িত্ব পালন করতে পারবেন।’

আওয়ামী লীগের সিলেট বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন সাংবাদিকদের জানান, ‘আওয়ামী লীগের নেতৃত্বের জন্যে যোগ্য এমন নেতারাই কমিটিতে আসবেন। যারা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সমৃদ্ধ জাতি গঠনের লক্ষ্যে নিঃস্বার্থভাবে কাজ করবেন।’

ক্লিন ইমেজের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা, যারা নেতৃত্বে আসতে পারেননি এমন যোগ্যরা কমিটিতে স্থান পাবেন বলেও তিনি জানিয়েছেন।

ব্যানার টানাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে আহত: এদিকে ব্যানার টানাতে গিয়ে ঘটছে দুর্ঘটনাও। মঙ্গলবার দিবাগত রাতে রিকাবীবাজারে বিদ্যুস্পৃষ্ট হয়ে গুরুতর আহত হয়েছেন একজন। দিবাগত রাত ১টার দিকে স্টেডিয়াম গ্যালারির পাশের সড়কে এক খুঁটিতে বিলবোর্ড লাগাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে খুঁটিতেই ঝুলতে থাকেন তিনি।

এসময় ঘটনাস্থলের পাশে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ও মহানগর সভাপতি বদর উদ্দিন কামরানের নামের এক বিলবোর্ড ঝুলে থাকতে দেখা গেছে, এ ব্যানারটির সৌজন্যে মুক্তিযোদ্ধা যুব কমান্ডের সাবেক আহ্বায়ক সৌমিত্র দাস পিংকুর নাম ও ছবি রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে এ বিলবোর্ড লাগাতে গিয়েই বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন তিনি।

স্থানীয়রা জানান, ‘রাতে রিকাবিবাজার স্টেডিয়াম মার্কেটের পাশে ফেস্টুন লাগাচ্ছিলেন তৌফিক। এসময় অসাবধানতাবশত বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে সেখানে আটকা পড়েন তিনি। পথচারীরা বিষয়টি দেখে দমকল বাহিনী ও পুলিশে খবর দেন।

খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক দমকল বাহিনীর একদল সদস্য সেখানে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিক‌্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন উদ্ধারকারী দলের টিম লিডার হুমায়ুন কার্নাইন।

Share

আরও খবর