২৭ ডিসেম্বর, ইন্টারন্যাশনাল ডেস্কঃ বছর ঘুরে আসছে নতুন বছর। কিন্তু ফেলে আসা বছরটি কেমন ছিল, তা নিয়ে চলছে নানা বিশ্লেষণ। ভালো-মন্দের মধ্যে দিয়ে দিন যায়, এটিই সত্য। ২০১৬ সালে বিশ্বের অর্থনীতি, রাজনীতি, কূটনীতি ও সমরনীতিতে অনেক পরিবর্তন ও অঘটন দেখা গেছে। এ সালের অঘটনগুলোর মধ্যে ‘বিমান দুর্ঘটনা’ একটি।

বিমান দুর্ঘটনার ইতিহাসে ২০১৬ সাল এক ট্র্যাজেডিক অধ্যায়। এ সালে ফেব্রুয়ারি মাসে নেপালে বিমান দুর্ঘটনার মধ্য দিয়ে ট্র্যাজেডিক এ অধ্যায় লেখা শুরু হয়েছে। সবশেষ ২৫ ডিসেম্বর রাশিয়ার বিমান দুর্ঘটনায় ৯২ জনের মৃত্যু হয়েছে। বছরের বাকি পাঁচ দিনের হিসাব বাদ দিয়ে বছরজুড়ে যেসব বিমান দুর্ঘটনা ঘটেছে, তার মধ্যে বড় দুর্ঘটনাগুলোর দিকে একবার চোখ রাখা যাক।

২৫ ডিসেম্বর : রাশিয়ার সামরিক বিমান দুর্ঘটনা

রাশিয়ার একটি সামরিক বিমান সোচি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সিরিয়ার লাটাকিয়া যাওয়ার পথে ৯২ আরোহীসহ কৃষ্ণ সাগরে বিধ্বস্ত হয়। আরোহীদের মধ্যে রুশ সেনাকর্মকর্তা, সামরিক বাহিনীর একটি ব্যান্ডদল ও সাংবাদিকরা ছিলেন। তারা কেউ-ই বেঁচে নেই বলে ধরে নেওয়া হয়েছে। আরোহীদের মৃতদেহ খোঁজা হচ্ছে। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পাইলটের ভুল বা যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে।

১৯ ডিসেম্বর : রাশিয়ার সামরিক বিমানের ক্র্যাশ ল্যান্ডিং

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি বিমান ৩৯ আরোহী নিয়ে সাইবেরিয়ায় সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের আমলের একটি ঘাঁটিতে ক্র্যাশ ল্যান্ডিং করে। আরোহীদের কেউ নিহত না হলেও গুরুতর আহত হন ১৬ জন।

১৬ ডিসেম্বর : ইন্দোনেশিয়ার পরিবহন বিমান বিধ্বস্ত

প্রশিক্ষণ চলাকালীন ইন্দোনেশিয়ার বিমান বাহিনীর একটি পরিবহন বিমান পাপুয়া প্রদেশের পাহাড়ি অঞ্চলে বিধ্বস্ত হয়। তিন পাইলট ও ১০ সামরিক কর্মকর্তার সবাই মারা যান।

৭ ডিসেম্বর : পাকিস্তান এয়ারলাইনসের বিমান বিধ্বস্ত

চিত্রাল শহর থেকে ইসলামাবাদে আসার পথে ৪৮ আরোহী নিয়ে পাকিস্তান এয়ারলাইনসের একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়। বিমানে ছিলেন ৪২ যাত্রী, পাঁচজন ক্রু ও একজন ইঞ্জিনিয়ার, দুর্ঘটনায় তাদের সবাই মারা যান। যাত্রীদের মধ্যে পাকিস্তানের জনপ্রিয় গায়ক থেকে ধর্মানুরাগীতে পরিণত হওয়ায় জুনাইদ জামশেদ, দুজন অস্ট্রেলীয় ও একজন চীনের নাগরিক ছিলেন।

২৮ নভেম্বর : ব্রাজিলের খেলোয়াড় নিয়ে বলিভিয়ার বিমান বিধ্বস্ত

ব্রাজিলের শাপেকোয়েন্স ফুটবল ক্লাবের খেলোয়াড়, কর্মকর্তা ও সাংবাদিকদের বহনকারী বলিভিয়ার একটি বিমান কলম্বিয়ার মেডিলিনে বিধ্বস্ত হয়। জ্বালানি ফুরিয়ে যাওয়ায় বিমানটি ক্র্যাশ ল্যান্ডিং করলে এটি বিধ্বস্ত হয়। তবে এ দুর্ঘটনায় ছয় আরোহী বেঁচে যান, যার মধ্যে তিন শাপেকোয়েন্সের খেলোয়াড়। ফুটবলের ইতিহাসে এত বড় দুর্ঘটনা নেই।

৩ আগস্ট : এমিরেটস বিমানের দুর্ঘটনা

ভারত থেকে দুবাইগামী এমিরেটস জেটলাইনারের একটি বিমান দুবাই বিমানবন্দরে অবতরণের সময় আগুন লেগে যায়। আগুন নেভাতে গিয়ে একজন অগ্নিনির্বাপণকর্মী মারা যান। তবে বিমানের ৩০০ আরোহীর সবাই বেঁচে যান।

১৯ মে : ভূমধ্যসাগরে মিশরের বিমান বিধ্বস্ত

ইজিপ্ট এয়ারের ৮০৪ নম্বর ফ্লাইটের যাত্রীবাহী বিমানটি ৬৬ আরোহী নিয়ে ভূমধ্যসাগরে বিধ্বস্ত হয়। প্যারিস থেকে কায়রো যাওয়ার পথে বিধ্বস্ত এ বিমানের সব আরোহী মারা যান। আরোহীদের মধ্যে ৪০ জন মিশরীয় ও ১৫ জন ফরারি যাত্রী ছিলেন।

১৩ এপ্রিল : কেনিয়ার সানবার্ড অ্যাভিয়েশনের বিমান দুর্ঘটনা

কেনিয়ার সানবার্ড অ্যাভিয়েশনের একটি বিমান পাপুয়া নিউ গিনির কিয়াংগা বিমানবন্দরে কাছে ক্র্যাশ ল্যান্ডিং করলে বিধ্বস্ত হয়। এ দুর্ঘটনায় ১২ আরোহীর সবাই মারা যায়।

১৯ মার্চ : ফ্লাইদুবাইয়ের বিমান দুর্ঘটনা

ফ্লাইদুবাইয়ের বোয়িং ৭৩৭ নম্বর বিমানটি ৬২ আরোহী নিয়ে রাশিয়ার রস্টভ-অন ডন বিমানবন্দরে অবতরণের সময় বিস্ফোরিত হয়। এতে আরোহীদের সবাই মারা যান। খারাপ আবহাওয়ার কারণে ভুল করে রানওয়ের বাইরে অবতরণ করায় বিমানটি বিস্ফোরিত হয়।

২৪ ফেব্রুয়ারি : নেপালে বিমান দুর্ঘটনা

নেপালের একটি ছোট বিমান বিধ্বস্ত হয়ে ২৩ আরোহীর সবাই মারা যান। পোখারা থেকে জমসমে যাওয়ার পথে বিমানটি রাডার থেকে বিচ্ছিন্ন হয় এবং পরে বিধ্বস্ত বিমানটি ধ্বংসাবশেষ পাওয়া যায়।

Share

আরও খবর