আকবর আলি খান১৩ জুন, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে স্বস্তির কোনো কারণ নেই বলে মন্তব্য করেছেন সেদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা আকবর আলি খান। বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘বাংলাদেশে গণতন্ত্রের পরিস্থিতি: কিছু ভাবনা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় আকবর আলি খান এসব কথা  বলেন। তিনি বলেন, ‘বর্তমান সমস্যার সমাধান না হলে, অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে। তবে তা আজ হবে, না কাল হবে জানি না।’

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) আয়োজিত এ আলোচনা সভায় লিখিত প্রবন্ধ পাঠ করেন বিশিষ্ট রাষ্ট্রবিজ্ঞানী রওনক জাহান। তিনি বলেন, উন্নয়ন প্রক্রিয়ার ধারা অব্যাহত রাখার জন্য দেশের শাসনব্যবস্থায় নাকি ‘সরকার অব্যাহত’ রাখার প্রয়োজন রয়েছে। এই ‘সরকার অব্যাহত রাখার’ কথাটি উদ্বেগজনক।

রওনক জাহান বলেন, দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার জন্য যেসব নীতি সুফল বয়ে আনে, তার ধারাবাহিকতা রক্ষার প্রয়োজন আছে। তবে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে জনগণই ভোটের মাধ্যমে ঠিক করবেন তারা কোনো সরকারকে অব্যাহত রাখবেন, না পরিবর্তন করবেন।

 বিশিষ্ট এই রাষ্ট্রবিজ্ঞানী বলেন, ‘দশম সংসদ নির্বাচনের পর সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হলো প্রধান দলগুলোর অংশগ্রহণের মাধ্যমে আরেকটি সংসদ নির্বাচন। এমন একটি নির্বাচনের ব্যবস্থা করাটা সরকারের প্রতিনিধিত্বমূলক স্বীকৃতির জন্য প্রয়োজন। এ সমস্যা আমাদের গণতন্ত্রের যাত্রাকে প্রতিনিয়ত বিচ্যুত করছে।

 তবে একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের ব্যবস্থা করলেই সব সমস্যার সমাধান হবে তেমনটি তিনি মনে করেন না।  এজন্য আমাদের প্রধান কাজ হবে  নির্বাচনী গণতন্ত্রের “গণতান্ত্রিকরণ” করা।’

দেশের  সার্বিক পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করে  রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন  বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো: শাফিউল ইসলাম বলেন, দেশে একটি অস্বস্তিকর পরিবেশ বিরাজ করছে। মানুষ  আতঙ্কের মাঝে দিন কাটাচ্ছে। এখানে গণতান্ত্রিক  আচার আচরণের বদলে এরকম স্বৈরাচারী ব্যবস্থা চলছে ।

এ প্রসংগে  বিশিষ্ট সমাজ চিন্তাবিদ জনাব ফরহাদ মজহার বলেন, বাংলাদেশ যে অবস্থায় পৌঁছেছে  তা থেকে মুক্তি পেতে  একটা গণঐক্য গড়ে তুলতে হবে এবং বর্তমান “অনৈতিক ও অবৈধ”  সরকারের বিরুদ্ধে ব্যাপক জনমত সৃষ্টি করতে হবে ।

সুজনের সভাপতি এম হাফিজউদ্দিন খানের সভাপতিত্বে  আজকের  সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন বিচারপতি কাজী এবাদুল হক, আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা অধ্যাপক আবু সাইয়িদ, সাংবাদিক মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর, সাবেক সংসদ সদস্য  হুমায়ুন কবির, সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার প্রমুখ।

Share

আরও খবর