১ মার্চ, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ সারা দেশে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটে ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ মানুষ।

দুর্ঘটনার জন্য দায়ী এক চালকের সাজার প্রতিবাদে খুলনা বিভাগে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট চলছিল রোববার থেকে। সোমবার অপর এক চালকের সাজার রায় হলে তারা দেশব্যাপী ধর্মঘটের ডাক দেয়।

এর ফলে রাজশাহী, খুলনা, যশোর, নড়াইল, কুষ্টিয়া, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, দিনাজপুর, সিলেট, গাজীপুর, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় যাত্রী ও পণ্যবাহী যান চলাচল বন্ধ রয়েছে বলে প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন।

ধর্মঘটের ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে মানুষ। যশোরের বেনাপোল স্থলবন্দরে পণ্যবাহী কয়েক শ ট্রাক আটকে রয়েছে। এতে বিপাকে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা।

২০১১ সালে মানিকগঞ্জে তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহতের ঘটনায় বাসচালক জামির হোসেনের যাবজ্জীবন সাজার প্রতিবাদে রোববার খুলনা বিভাগের দশ জেলায় ধর্মঘট শুরু করে চালক-শ্রমিকরা।

সোমবার প্রশাসনের আশ্বাসে কর্মসূচি প্রত্যাহারের ঘোষণা এলেও পরে শ্রমিকনেতারা কর্মসূচি বহাল রাখার কথা বলেন। সাভারে ট্রাকচাপা দিয়ে এক নারীকে হত্যার দায়ে সোমবার ট্রাকচালক মীর হোসেনের ফাঁসির রায় দেওয়া হয় ঢাকার আদালতে। এরপর রাতে মতিঝিলে সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের এক বৈঠকে ধর্মঘটের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এর আগে সোমবার দুপুরে খুলনা সার্কিট হাউসের সম্মেলন কক্ষে বৈঠক শেষে খুলনার অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ ফারুক হোসেন এবং খুলনা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন প্রেস ব্রিফিংয়ে সন্ধ্যা সাতটা থেকে বিভাগীয় পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দিলেও কেন্দ্রীয় কমিটি তা প্রত্যাখ্যান করে।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের খুলনা বিভাগীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক শেখ শফিকুল ইসলাম মঞ্জু সোমবার রাত ১১টায় জানান, ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়নি। বিভাগীয় কমিশনারের অনুরোধে শুধু খুলনা জেলায় কিছুটা শিথিল করা হয়। বাকি ৯টি জেলায় ধর্মঘট চলমান ছিল। তবে রাত ৯টায় ঢাকায় মালিক সমিতি এবং শ্রমিকনেতাদের কেন্দ্রীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এই বৈঠকেই ধর্মঘট দেশব্যাপী করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি ও খুলনা বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম বক্স দুদু জানান, মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে দেশব্যাপী পরিবহন ধর্মঘট আহ্বান করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ধর্মঘট প্রত্যাহারের বিষয়ে আলোচনা চলাকালে খবর আসে ঢাকার একটি আদালতে সাভারে সড়ক দুর্ঘটনা সংক্রান্ত মামলায় একজন চালককে মৃত্যুদণ্ডের রায় দেওয়া হয়েছে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে মালিক-শ্রমিকরা ক্ষুব্ধ হয়ে দেশব্যাপী ধর্মঘট ডাকার সিদ্ধান্ত নেন।

Share

আরও খবর