জাহিদ রিপন

জাহিদ রিপন

জাহিদ রিপন। বাংলাদেশের থিয়েটার অঙ্গনের একজন সুপরিচিত মুখ। তিনি একাধারে নাট্যনির্দেশক, গবেষক ও মুকাভিনয় প্রশিক্ষক। যার হাত ধরে আস্তে আস্তে গড়ে উঠেছে তাঁর নিজের দল ‘সপ্নদল’। তাঁর স্বপ্ন তিনি তাঁর দল নিয়ে পৌছাবেন সমস্ত বিশ্বের প্রতিটি কোনায়। হিরোশিমা দিবসে তার দলের নাটক ‘ত্রীংশ শতাব্দী’র মঞ্চায়ন হল গত ৬ আগস্ট। সেই নাটকের শেষেই এই অসম্ভব প্রতিভাবান ব্যক্তিটি ‘টাইমস টু হ্যালো ’র সাথে আড্ডা দিলেন। জানালেন তাঁর দল ও নিজের কিছু কথা।

দি টাইমস ইনফোঃ কেমন আছেন?
জাহিদ রিপনঃ জি ভাল।
দি টাইমস ইনফোঃ আপনার দলের ‘ত্রীংশ শতাব্দী’ নাটকটি কত বছর ধরে মঞ্চায়িত হচ্ছে?
জাহিদ রিপনঃ গত চৌদ্দ বছর যাবত হিরোশিমা দিবসে ও অন্যান্য সময় আমরা এই নাটকটি মঞ্চায়ন করে আসছি।
দি টাইম ইনফোঃ এই নাটকে এত বর্ননা এত তথ্য সংগ্রহ করতে কতটা সময় এগেছে?
জাহিদ রিপনঃ এই নাটকের সমস্ত তথ্য সংগ্রহ করতে প্রায় ১২-১৩ লেগে গেছে। হিরোশিমা সম্পর্কিত পান্ডলিপীটি আমি

পড়েছি এই নাটক মঞ্চায়নের ১২ বছর আগ থেকে। তবে এর তথ্য বর্তমান সব প্রেক্ষাপটের সাথে তাল মিলিয়ে প্রতিনিয়ত পরিবর্তন হয়।
দি টাইমস ইনফোঃ এই নাটকে গামছা প্রপস হিসেবে ব্যবহার করার কারন কি?
জাহিদ রিপনঃ গামছা আমাদের এই ভারতীয় উপমহাদেশের অতি পরিচিত নিত্য ব্যবহারিক সরঞ্জাম। আমাদের এই অঞ্চলের মানুষও যে বিশ্ব শান্তি ও বিশ্বের এই দুর্যোগ নিয়ে ভাবে সেটা প্রকাশ করার জন্যই আমি গামছার ব্যবহার করেছি এখানে।
দি টাইমস ইনফোঃ আপনার নিজের গড়া দল স্বপ্নদলের বয়স কত হল?
জাহিদ রিপনঃ এইত ১৫ বছর হয়ে গেল।
দি টাইমস ইনফোঃ ‘স্বপ্নদল’কে নিয়ে আপনার কি চিন্তা?
জাহিদ রিপনঃ স্বপ্নের তো শেষ নেই। আমার ইচ্ছা বিশ্বের সব নাট্যোৎসবে আমি আমার দলকে নিয়ে যাব এবং আমার দেশকে, দেশের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে তুলে ধরব সবার সামনে। আর পাশাপাশি কাজ করছি সবাইকে নিয়ে, সব মিলিয়ে কিছুটা সীমাব্ধতা তো থাকেই। তাই আরও ভাল কিছু কাজ করতে চাই সামনে এইত।
দি টাইমস ইনফোঃ সেলিম আল-দীন এর লেখা নাটক নিয়ে বেশি কাজ করা হয় আপনাদের এর কারন কি?

জাহিদ রিপন 1

মঞ্চে জাহিদ রিপন

জাহিদ রিপনঃ আসলে বেশি কাজ করা না ঠিক। আমরা তাঁর দর্শন নিয়ে কাজ করতে পছন্দ করি। তাঁর দর্শনের যে ব্যবহারিক রুপ সেটাই আমরা দিতে চেষ্টা করি। আর এছাড়াও অন্যান্য নাট্যকারের নাটক নিয়েও তো আমরা কাজ করছিই।
দি টাইমস ইনফোঃ বর্তমানে যারা থিয়েটার করছে তাঁরা থিয়েটারের নাম ব্যবহার করে মিডিয়ায় নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করছে এর প্রভাব আসলে কি হতে পারে-
জাহিদ রিপনঃ থিয়েটারের নাম ব্যবহার করে মিডিয়াতে কাজ করা বা কাজ পাওয়া এটা একটি স্বল্প প্রলোভন মাত্র। যারা এই কাজটি করছে, আমার মতে তাঁরা যেমন নিজেদের ক্ষতি করছে সাথে সাথে থিয়েটার অঙ্গনেরও ক্ষতি করছে।
দি টাইমস ইনফোঃ আপনার মতে বর্তমান থিয়েটার অঙ্গনের কি অবস্থা?
জাহিদ রিপনঃ বর্তমানে একটা রেনেসা চলছে। তবে যারা সত্যিকার অর্থেই থিয়েটার করতে আসছেন তাঁরা টিকবেন বাকিরা ঝরে যাবেন। আর তরুন যারা থিয়েটার করতে আসছেন পরিবর্তনটা আসলে আসবে তাদের হাত ধরেই। আর পারিপার্শিক প্রেক্ষাপট, নানা সীমাবদ্ধতা সব কিছু থাকার পরেও আমরা সবাই চেষ্টা করছি ভাল কিছু কাজ করার জন্য।
দি টাইমস ইনফোঃ ‘রেপাটরি থিয়েটার’ নিয়ে আপনার অভিমত কি?
জাহিদ রিপনঃ আমাদের দেশের বাইরে বেশিরভাগ থিয়েটারই রেপাটরি। আমাদের দেশেও বেশ কয়েকটি আছে। তবে আমাদের দেশে সম্পূর্নভাবে এর প্রচলন হতে কিছুটা সময় লাগবে।
দি টাইমস ইনফোঃ এখন কিছু দ্রুত উত্তর দেবেন?
জাহিদ রিপনঃ হ্যা, নিশ্চয়ই।
দি টাইমস ইনফোঃ কত বছর যাবত থিয়েটার করছেন?
জাহিদ রিপনঃ প্রায় ৩০ বছর।
দি টাইমস ইনফোঃ থিয়েটার করার কারন কি?
জাহিদ রিপনঃ আমি থিয়েটারকে প্রচন্ড ভালবাসি। তাই থিয়েটার করা।
দি টাইমস ইনফোঃ আপনার পছন্দের রং কি?
জাহিদ রিপনঃ নীল ও সবুজ।
দি টাইমস ইনফোঃ নিজের কাজ নিয়ে কতটা খুশি?
জাহিদ রিপনঃ খুশি হওয়ার মত কাজ করা হয়নি এখনও।
দি টাইমস ইনফোঃ পছন্দের মঞ্চ নির্দেশক কে?
জাহিদ রিপনঃ নাসির উদ্দিন ইউসুফ ও জামিল আহম্মেদ।
দি টাইমস ইনফোঃ অবসরে কি করেন?
জাহিদ রিপনঃ আমি সার্বক্ষনিক থিয়েটার কর্মী। জীবিকার জন্য চাকরি করতে হয়। তবে আমি চাকরির ফাঁকে থিয়েটার করিনা, থিয়েটারের ফাঁকে চাকরি করি।
দি টাইমস ইনফোঃ কোথায় চাকরি করছেন?
জাহিদ রিপনঃ আমি জাতীয় গন মাধ্যম ইন্সস্টিটিউটের উপ-পরিচালক।
দি টাইমস ইনফোঃ আপনার নিজের মিডিয়ায় কাজ করার ইচ্ছা কতটুকু?
জাহিদ রিপনঃ আপাতত সীদ্ধান্ত নিয়েছি আমি মিডিয়াতে কাজ করবনা।
দি টাইমস ইনফোঃ আপনার একান্ত ব্যক্তিগত ভবিষ্যত চিন্তা কি?
জাহিদ রিপনঃ চাকরি থেকে অবসরের পরে আমি সার্বক্ষনিক থিয়েটার করতে চাই।
দি টাইমস ইনফোঃ আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের সময় দেবার জন্য।
জাহিদ রিপনঃ আপনাদেরকেও অসংখ্য ধন্যবাদ।

Share

আরও খবর