২৭ নভেম্বর, স্পোর্টস ডেস্কঃ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে বাংলাদেশে আনার চেষ্টা করছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়।

এর অংশ হিসেবে মঙ্গলবার ম্যানইউর চার সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে এসেছিলেন। তারা যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম পরিদর্শন করেছেন। যদিও মাঠের মান, গ্যালারি, ড্রেসিং রুম, মিডিয়া রুম দেখে তারা সন্তুষ্ট হতে পারেননি। তারপরও বাংলাদেশে আসার জন্য তারা ৩ মিলিয়ন ডলার দাবি করেছেন। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ২৮ কোটি টাকা। এতো টাকা দিয়ে ও অন্যান্য অবকাঠামোগত সমস্যার সমাধান করে শেষ পর্যন্ত ম্যানইউকে কী আনা সম্ভব হবে?

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ জানিয়েছেন ফিফটি ফিফটি চান্সের কথা। পাশাপাশি তিনি এও জানিয়েছেন টাকার জোগাড় হলে ম্যানইউ আসবে, জোগাড় না হলে আসবে না।

মঙ্গলবার রাতে তিনি বলেছেন, ‘ম্যানইউর প্রতিনিধিদের সঙ্গে আমাদের ওইরকম ফলপ্রসু কোনো আলোচনা হয়নি। তবে মূল কথা হল টাকা জোগাড় হলে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড আসবে, টাকা জোগাড় না হলে আসবে না। তারা যে অ্যামাউন্ট দাবি করেছে সেটা কিন্তু কম নয়। মাঠ, গ্যালারি, ড্রেসিং রুম ও অন্যান্য তাদের যে চাহিদা রয়েছে সেগুলো স্ট্যান্ডার্ড মানে নিয়ে যাওয়াটা সময়ের ব্যাপার। কিন্তু ২৮ কোটি বা ৩০ কোটি টাকাটা কিন্তু ম্যাটার করে। তারপরও বিষয়টা এখনো ফিফটি ফিফটিতে আছে। শেষ পর্যন্ত আসতেও পারে, নাও আসতে পারে।’

শেষ পর্যন্ত সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে, ব্যাটে-বলে মিলে গেলে ২০২০ সালের জুলাইতে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের সেরা একাদশের বিপক্ষে একটি প্রীতি ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশে আসবে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

Share

আরও খবর