১৭ মার্চ, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে জঙ্গিবাদ, নৈরাজ্য, সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে দেশবাসী আজ ঘুরে দাঁড়িয়েছে।

তিনি বলেন, এগুলো এখনো নির্মূল করা সম্ভব না হলেও নিয়ন্ত্রণ করা গেছে। এখনও দেশের মধ্যে ষড়যন্ত্রকারীরা ঘাপটি মেরে রয়েছে। থেমে নেই আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রকারীরাও।

বৃহস্পতিবার বিকেলে যশোর জিলা স্কুল মাঠে মাদক সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদবিরোধী এক মহাসমাবেশে এসব কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

আসাদুজ্জামান খান বলেন, কাল (বুধবার) রাতে আপনারা দেখেছেন চট্টগ্রামে পুলিশ দক্ষতার সঙ্গে জঙ্গি আস্তানা গুঁড়িয়ে দিয়েছে। ১০ বছর আগের পুলিশ আর এখনকার পুলিশ এক না। আমরা পুলিশের জনবল আর দক্ষতা বৃদ্ধি করেছি বলেই এটা সম্ভব হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ১৯ বার হত্যার ষড়যন্ত্র হয়েছে। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রকারীরা তাকে হত্যার সুযোগ খুঁজছে। তাই আমাদের সতর্ক থাকতে হচ্ছে।

সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতনের বিষয়ে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যদি কেউ এ ধরনের অপরাধের সঙ্গে জড়িত হন তাকে কঠোর শাস্তি পেতে হবে। হাজার বছর ধরে সব ধর্মের মানুষ এদেশে শাস্তিপূর্ণভাবে সহাবস্থান করছে। এই ঐতিহ্য বিনষ্টের চেষ্টা করা হলে তাদের সঠিক বিচার করা হবে।

সরকারের নানা উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের বর্ণনা তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, আমরা জনগণের শক্তিতে বিশ্বাস করি। সামনে নির্বাচন আসছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকনির্দেশনায় বাংলাদেশ যে গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে তা অব্যাহত রাখতে আবারো আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে জয়ী করুন।

জেলা পুলিশ প্রশাসন ও যশোর পৌরসভার আয়োজনে এ সমাবেশে পুলিশের খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি এসএম মনিরুজ্জামানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক, যশোর-২ আসনের সংসদ সদস্য মনিরুল ইসলাম, যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ ও যশোর-৫ আসনের সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য।

এ ছাড়া অন্যদের মধ্যে যশোরের জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ুন কবীর, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার, যশোর পৌরসভার মেয়র জহিরুল ইসলাম রেন্টু চাকলাদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সমাবেশ থেকে যশোর শহরকে সিসি ক্যামেরার আওতায় নিয়ে আসার প্রক্রিয়া, যশোর পৌর এলাকায় বসবাসরত মুক্তিযোদ্ধাদের হোল্ডিং ট্যাক্সমুক্তকরণ এবং হ্যলো যশোর পুলিশ অ্যাপস-এর উদ্বোধন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। একই অনুষ্ঠানে ৮৬৬ জন মাদক ব্যবসায়ী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করেন।

Share

আরও খবর