১৮ নভেম্বর, স্পোর্টস ডেস্কঃ বাংলাদেশ ও ভারত প্রথমবারের মতো দিবারাত্রির টেস্ট খেলার অপেক্ষায়। কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে প্রথমবারের মতো গোলাপি বলে টেস্ট রাঙাবে দুই দল।

ইন্দোরে দুই দল খেলেছিল দ্বিপাক্ষিক সিরিজের প্রথম টেস্ট। কিন্তু ঘুরে ফিরে বারবারই উঠে এসেছে গোলাপি বলের প্রসঙ্গ। ভারত সেই প্রসঙ্গ আবার উসকে দেয় টেস্টের আগে গোলাপি বলে অনুশীলন করে। লাল বলের পাশাপাশি টিম ইন্ডিয়া ইন্দোরেই গোলাপি বলে অনুশীলন করে। বাংলাদেশের মূল খেলোয়াড়রা সেই সুযোগটি অবশ্য নেয়নি। একাদশের বাইরে থাকা ক্রিকেটাররা অনুশীলন করেছে গোলাপি বলে।

বিভিন্ন সময়ে গোলাপি বলের ক্রিকেট নিয়ে কথা বলেছেন দুই দলের সংশ্লিষ্টরা।

মুমিনুল হক (অধিনায়ক, বাংলাদেশ) 

ভারত এর আগে গোলাপি বলে খেলেনি। আমরাও খেলিনি। এটা দুই দলের সমান সুযোগ। আর এটি রোমাঞ্চকর ব্যাপার কারণ আমরা গোলাপি বলে খেলবো প্রথমবারের মতো। একটি ভালো অনুশীলন আপনাকে মানসিকভাবে শক্ত করে তুলতে পারে।  আমার কাছে মনে হয় ইন্দোরে আমরা যে সুইংয়ে খেলেছি, এরচেয়ে বেশি সুইং মনে হয় না হবে। অনেক বেশি সুইংয়ে ভালো অনুশীলন হয়ে গেছে বলে আমার কাছে মনেহয়। চ্যালেঞ্জ থাকবে। চ্যালেঞ্জটা একটু ভালোভাবে নেয়া উচিত। ইতিবাচকভাবে নিতে হবে। মানসিকতা ঠিক থাকলে ভালো করা সহজে। যদি গোলাপি বল নিয়ে শুরুতেই ভয় চলে আসে তাহলে সমস্যার সৃষ্টি হবে।

কোহলি (অধিনায়ক, ভারত)

আমি খুব রোমাঞ্চিত। আমার মতে এটা টেস্ট ক্রিকেটে নতুন উন্মাদনার সৃষ্টি করছে। এজন্য আমরা সবাই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি। ব্যাটিং করে মনে হয়েছে লাল বলের থেকে খানিকটা বেশি সুইং করে গোলাপি বলে। বলের উপর পৃথিক একটা স্তর আছে যা সহজে নষ্ট হয় না এবং সিমটাও কিছুটা মোটা মনে হচ্ছে। উইকেট যদি বোলিং সহায়ক হয়ে থাকে তাহলে বোলাররা ম্যাচে প্রভাব বিস্তার করবে। আমি পুরোনো বল নিয়ে বেশ শঙ্কিত। শিশির ভাবনার সাথে বলের উপরের স্তর অবশ্যই বোলারদের চিন্তায় ফেলবে। তবে গোলাপি বল নিয়ে আমাদের আলাদা রোমাঞ্চ কাজ করছে। বিশেষ করে প্রথম টেস্ট, টসের সমটা। প্রথম এক ঘন্টা এগুলো বাড়তি উন্মাদনা দিচ্ছে।

মেহেদী হাসান মিরাজ (অলরাউন্ডার, বাংলাদেশ)

গোলাপি বলটা ভালো গ্রিপ হচ্ছে।এই বল দিয়েই তে ম্যাচে খেলব। সিমের উপর বল পিচ করলেই বাড়তি গতি পাচ্ছে।এটা ভালো দিক হবে স্পিনারদের জন্য। স্পিনাররা যদি টার্ণ পায় অবশ্যই ব্যাটসম্যানদের ভোগাবে।  তবে ব্যাটসম্যানরা দেখে শুনে খেললে কোনো সমস্যা হবে না। রাতের বেলাও বল ঠিকমতো গ্রিপ হয়। এটা বোলারদের জন্য অবশ্যই ভালো।

আজিঙ্কা রাহানে (ব্যাটসম্যান, ভারত)

গোলাপি বলের ক্রিকেট টেস্টকে আমরা স্বাগত জানাচ্ছি। ভারত টেস্ট খেলুড়ে দেশ। আমাদের দিবারাত্রি টেস্ট খেলা দরকার। যারা অফিসে কাজ করে তারা দিনে এসে মাঠে খেলা দেখতে পারেন না। হ্যাঁ গোলাপি বলে খেলা চ্যালেঞ্জিং। বলটিতে সেই পরিমাণে গ্লোসি নেই। আমি এখনও গোলাপি বলে খেলিনি। এর আগে দিলীপ ট্রফিতে যে খেলা হয়েছে সেটাতে আমি ছিলাম না। আরেকটি বিষয় আমার মাঝে মাঝে মাথায় ঢুকে না এটা কি গোলাপি নাকি কমলা রঙের। তবে এ সময়ে কলকাতায় খেলা বেশ কঠিন বিষয়। সাদা বলের ক্রিকেটে রাতে কি হয় তা তো মোটামুটি সবার জানা। গোলাপিতে হবে তা ধারণা করা কঠিন। তাই কিছুটা উদ্বিগ্নও রয়েছি। তবে উল্লসিত এটা নিয়ে কোনো দ্বিমত নেই।

ভারত অরুণ (ভারতের বোলিং কোচ)

গোলাপি বলে খেলা আমাদের কোচিং স্টাফদের জন্যও নতুন অভিজ্ঞতা। আমাদের যারা স্পিনার আছে তারা বিশ্বের এক নম্বর ও দুই নম্বর। তারা অনেক অভিজ্ঞতা নিয়ে এসেছে। আমার কাজ তাদেরকে ভালোভাবে মূল্যায়ন করা এবং নতুন বলে তাদের রসায়ন করে দেওয়া। সত্যিই এটা নতুন অভিজ্ঞতা হবে এবং ছেলেরা বুঝতে পারছে কিভাবে নতুন বলে বোলিং করতে হবে। কিভাবে পুরোনো বলে মানিয়ে নিতে হবে।

Share

আরও খবর