২৭ অক্টোবর, ইন্টারন্যাশনাল ডেস্কঃ বিরোধী দলের প্রত্যাখ্যান ও ব্যাপক সহিংসতার মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার কেনিয়ায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোট গ্রহণ চলছে।

আলজাজিরা জানিয়েছে, এরই মধ্যে এক বিক্ষোভকারী পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন। এরপর পরিস্থিতি আরো সংঘাতময় হয়ে উঠেছে।

৮ আগস্ট প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ক্ষমতাসীন উহুরু কেনিয়াত্তা বিজয়ী হলেও ভোট গ্রহণ প্রক্রিয়ায় অনিয়ম ও অস্বচ্ছতার অভিযোগ এনে তা বাতিল করেন দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। এরপর কেনিয়ার নির্বাচন কমিশন ২৬ আগস্ট পুনর্নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করে।

নির্বাচন প্রক্রিয়া সংস্কারের দাবি জানায় বিরোধীদলীয় নেতা রাইলা ওদিঙ্গা। কিন্তু তাদের দাবি পূরণ না হওয়ায় নির্বাচন বয়কট করে তার দল। ফলে বৃহস্পতিবারের নির্বাচন অপ্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণই বলা যায়। তবে ক্ষমতাসীনদের এলাকাগুলোতে ভোটার উপস্থিতি বেশি হলেও অন্যান্য অঞ্চলে তা খুবই কম।

দ্বিতীয়বার প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য লড়ছেন কেনিয়াত্তা। তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ওদিঙ্গা প্রজন্মগতভাবেই রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ। এর আগেরবার অল্প ব্যবধানে কেনিয়াত্তার কাছে পরাজিত হন ওদিঙ্গা।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সকাল ৬টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়, চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। ভোটার ও ভোটকেন্দ্রের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সকাল থেকে হাজার হাজার নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন করা হয়। নিয়মিত বাহিনীর পাশাপাশি আধসামরিক বাহিনীও মোতায়েন করা হয়েছে।

নিরাপত্তা ঘাটতির কারণে আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকরা তাদের কার্যক্রম গুঁটিয়ে নিয়েছে। নির্বাচনের ফলাফল মেনে নেওয়া হবে না বলে ঘোষণা দিয়েছেন ওদিঙ্গা। তার সমর্থকরা সড়ক অবরোধ করে বিভিন্ন স্থানে আগুন দিয়েছে। নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে বিরোধীদলীয় নেতা-কর্মীদের রক্তাক্ত সংঘর্ষ হয়েছে।

তথ্যসূত্র : বিবিসি ও আলজাজিরা অনলাইন

Share

আরও খবর