১৯ মার্চ, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ সরকার ‘দেশবিরোধী এজেন্ডা’ বাস্তবায়নের জন্য জঙ্গিবাদকে সামনে এনেছে বলে দাবি করেছে বিএনপি।

রোববার সংবাদ সম্মেলনে দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়-জঙ্গিবাদ নিয়ে বিনাভোটের সরকার জনগণের সাথে লুকোচুরি খেলছে।’

রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়।

‘সরকারের গণতন্ত্র ও দেশবিরোধী বহু গোপন এজেন্ডা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে উগ্রবাদকে উপলক্ষ হিসেবে জনগণের সামনে আনা হয়েছে। মানুষ যাতে জঙ্গিবাদী তৎপরতার আলোচনা নিয়েই ব্যস্ত থাকে, আর এরই ফাঁক দিয়ে অশুভ ইচ্ছা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়’, বলেন বিএনপির এই নেতা।

রিজভী বলেন, উগ্রবাদীদের স্থান আরো পাকাপোক্ত হচ্ছে, যার প্রমাণ মিললো গত কয়েকদিনে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায়। সরকারের বিভেদ-বিভাজন ও প্রতিহিংসার রাজনীতিকে এড়িয়ে জঙ্গিবাদকে দমন করতে দলমত নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবেই কাজ করতে হবে।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড এবং ঢাকার আশকোনা ও খিলগাঁয়ের আত্মঘাতী জঙ্গিদের কর্মকাণ্ডে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন রিজভী।

প্রধানমন্ত্রীকে ভুল তথ্য দিয়ে একটি মহল বিচার বিভাগের সঙ্গে প্রশাসন বা নির্বাহী বিভাগের দূরত্ব তৈরি করছে বলে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ‘দেশের প্রধান বিচারপতি যখন এ ধরনের অভিযোগ উত্থাপন করেন, সেটি নিশ্চয়ই জনমনে যৌক্তিক ভিত্তি পায়। কতটা ভুক্তভোগী হলে স্বয়ং প্রধান বিচারপতিও ক্ষুদ্ধ হয়ে নির্বাহী হস্তক্ষেপের বিষয়ে অভিযোগ তোলেন।

ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্ভাব্য চুক্তিতে বাংলাদেশ ক্ষতিগ্রস্ত হবে দাবি করে তিনি বলেন, ‘পৃথিবীতে শক্তিশালী ও অপেক্ষাকৃত কম শক্তিশালী দেশের মধ্যে সামরিক চুক্তি হলে সব সুবিধা শক্তিশালী দেশই পেয়ে থাকে। ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে প্রস্তাবিত সামরিক চুক্তিতে এর থেকে কোনো ব্যতিক্রম হবে বলে মনে হয় না।’

দিনাজপুর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক বখতিয়ার আহমেদ কচিকে গ্রেপ্তার করায় এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান রিজভী। তিনি কচির মুক্তি দাবি করেন।

Share

আরও খবর