ইফতেখারুজ্জামান২৯ মে, ন্যাশনাল ডেস্কঃ দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কমিশনার মো. সাহাবুদ্দিন চুপ্পুর বক্তব্যে বিস্ময় প্রকাশ করে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেছেন, ‘আমাদের কোনো মুখোশ নেই। পরিচয় একটাই—আমরা টিআইবি।’ গতকাল বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে এক অনুষ্ঠানে শাহাবুদ্দিন চুপ্পু বলেন, টিআইবি উদ্দেশ্যমূলকভাবে দুদকের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালাচ্ছে। তাই এমন একদিন আসবে, যেদিন তাদের ‘মুখোশ উন্মোচন’ করতে দ্বিধাবোধ করা হবে না।

আজ (বৃহস্পতিবার) রাজধানীর মহাখালীর একটি হোটেলে ‘জাতীয় শুদ্ধতার কৌশল: বাস্তবায়ন ও অগ্রগতি’ শীর্ষক এক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে দুদক কমিশনারের মন্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে  ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘টিআইবি নিয়ে একজন কমিশনার যেভাবে বলেছেন তাতে আমি বলব আমরা বিব্রত, হতবাক হয়েছি। উনি যে ভাষা ও বডি ল্যাংগুয়েজ দেখিয়েছেন, তাতে তিনি নিজেকেই বিব্রত করেছেন।’

টিআইবির মুখোশ উন্মোচন প্রসঙ্গে ইফতেখারুজ্জামান বলেন, সময় হলে কেন? আজই মুখোশ উন্মোচন করুন। তদন্তে আমরাও সাহায্য করব। আর যদি সমালোচনার কারণেই এমন হয়, তবে বলব আরেকবার ভেবে দেখুন।’

 তিনি বলেন, ‘দুদক প্রতিষ্ঠার পেছনে টিআইবিরও ভূমিকা আছে। দুদক প্রতিষ্ঠার দাবি আমরাই করেছিলাম। এর মূল খসড়াও আমরা করে দিয়েছিলাম। আমরা চাই প্রতিষ্ঠানটি আরও কার্যকর হোক।’

গতকাল টিআইবির উদ্দেশে সাহাবুদ্দিন প্রশ্ন রেখে বলেছিলেন, ‘আপনারা কতটা স্বচ্ছ। বিদেশি টাকায় যে কাজ করছেন, তা কতটুকু গবেষণার কাজে লাগানো হচ্ছে?’

এর জবাবে ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘টিআইবি বিদেশি অর্থায়নে চলে, আমরা এটা অস্বীকার করি না। এটা আমরা আগেও বলেছি। সরকারের সম্মতি ছাড়া টিআইবি একটি টাকাও গ্রহণ করে না, খরচও করে না, করতে পারে না। সরকারের কাছে আমরা জবাবদিহি করি।’

দুদক কমিশনার চুপ্পুর বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, সমালোচনা করার কারণে যদি টিআইবিকে হেনস্থা করা হয় তবে তা হবে অন্যায়। তথ্য অধিকার আইনে কারো সমালোচনা করা অন্যায় নয়। উদ্দেশ্যমূলকভাবে কিছু করা দুদক বা সরকারের ক্ষমতা নেই বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

Share

আরও খবর