ইরাকি বাহিনী

১৯ নভেম্বর, ইন্টারন্যাশনাল ডেস্কঃ ইসলামিক স্টেট (আইএস) এর দখলে থাকা ইরাকের সর্বশেষ শহর রাওয়া’র নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে সরকারি বাহিনী। এর ফলে ইরাকের আর কোথাও আইএস’র নিয়ন্ত্রণ নেই। ইরাকে ‘খিলাফত’ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন নিয়ে অভিযান চালানো এই নামটি এখন কেবলি ইতিহাস।

হামজা মাহমুদ (১৩) বিগত তিন বছর ধরে তার কৈশোরিক সময়টিতে সিরিয়া সীমান্তজুড়ে মরু অঞ্চলে আইএস জিহাদিদের কঠোর ও নির্মম শাসন প্রত্যক্ষ করেছে।
আইএস জিহাদিরা ২০১৪ সালে ইউফ্রেতিস নদীর তীরে অবস্থিত হামজার শহরটি দখল করে নেয়। এরপর সে একদিনের জন্যও স্কুলে যেতে পারেনি।

হামজা বার্তা সংস্থা এএফপি’কে বলেছে, আইএস এর শাসনের সময় পুরুষদের লম্বা দাঁড়ি রাখতে হতো। তা না করলে তাদেরকে বিশটি বেত্রাঘাত মারা হতো।
জিহাদিদের শাসন আমলে রাওয়া ও এর আশপাশের ২০ হাজার বাসিন্দাকে আইএসের নিষ্ঠুর শাসন প্রত্যক্ষ করতে হয়েছে।

আরেফ আদি (৬৭) বলেন, তিন বছর ধরে তারা আমাদের বিদ্যুৎ, টেলিফোন ব্যবহার ও টেলিভিশন দেখতে দেয়নি।

শুক্রবার রাওয়া ইরাকের সরকারি বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে এলে তারা মুক্তির আনন্দে উল্লাস প্রকাশ করে। তবে এখনোও আইএস-এর হুমকি রয়ে গেছে।

শহরের মেয়র হুসেন আলী বলেন, আইএস জিহাদিরা মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট বাহিনীর ছত্রছায়ায় অভিযান চালানো ইরাকী বাহিনীর সঙ্গে লড়াই না করে শহর ছেড়ে পালিয়ে গেছে। সুন্নী গোষ্ঠী শাসিত রাওয়া দীর্ঘদিন ধরে ইরাকে জিহাদিদের ঘাঁটি ছিল।

Share

আরও খবর